স্যাপিয়েন্সঃ মানবজাতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস (৫) - সহোদরের রক্ষক আমরা

সহোদরের রক্ষক আমরা (Our Brothers Keepers)     দেড় লক্ষ বছর আগে মানুষ ছিল নিতান্ত গোবেচারা এক প্রাণী। যদিও আগুনকে বেশ ভালভাবেই বাগে নিয়ে এসেছিল মানুষ। সিংহদের তাড়াতে, তীব্র শীতের রাতে উষ্ণতার জন্যে কিংবা জংলা পুড়িয়ে সাফ করতে মানুষ আগুনের ব্যবহার শিখে গিয়েছিল ততদিনে। তবু তাদের জনসংখ্যা তেমন আহামরি কিছু ছিল না। হয়ত সবক'টা প্রজাতি মিলিয়ে লাখ দশেকের মত মানুষ ছিল সেসময়। ইন্দোনেশিয়ান দ্বীপপুঞ্জ থেকে আইরেবিয়ান উপদ্বীপের মাঝের বিস্তৃত জায়গাজুড়ে... বিস্তারিত

স্যাপিয়েন্সঃ মানবজাতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস (৪) - রাঁধুনি জাতির গল্প

রাঁধুনি জাতির গল্প (A Race of Cooks)   মানবজাতির এই শিখরে উঠার পথে একটি তাৎপর্যময় ধাপ ছিল আগুন পোষ মানানো। ৮ লাখ বছর আগেও মানুষের কয়েকটা প্রজাতি কখনোসখনো আগুন ব্যবহার করতো। আর তিন লক্ষ বছর আগে থেকে হোমো ইরেক্টাস, হোমো নিয়ান্ডারথালস ও আমাদের পূর্বপুরুষেরা নিয়মিতভাবেই আগুনকে কাজে লাগাতে শুরু করেছিল। আগুন ছিল রাতের অন্ধকারে আলো এবং শীতে উষ্ণতার নির্ভরযোগ্য একটি উৎস। সেই সাথে শিকারের লোভে ঘুরঘুর করতে থাকা হিংস্র সিংহের... বিস্তারিত

সেপিয়েন্সঃ মানবজাতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস (৩) - চিন্তার মাশুল

চিন্তার মাশুল  (The Cost of Thinking)   কিছু তফাৎ থাকা সত্ত্বেও সব প্রজাতির মানুষের মধ্যেই কিছু সাধারণ শনাক্তকারী বৈশিষ্ট্য ছিল। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিল- মস্তিস্কের আকার। আর সকল প্রাণীর তুলনায় মানুষের মস্তিস্ক ছিল ঢের বড় সাইজের। ৬০ কেজি ওজনের স্তন্যপায়ীদের ব্রেইনের গড় আকার ২০০ ঘন সেন্টিমিটার (সিসি) হয়ে থাকে। সেখানে ২৫ লাখ বছর আগের একেবারে আদিম মানুষের মস্তিস্কের আয়তন ছিল ৬০০ সিসি। আর আধুনিক মানুষ ১২০০ - ১৪০০ সিসি আকারের মস্তিষ্ক... বিস্তারিত

হোমো সেপিয়েন্স

তুচ্ছ এক প্রাণী ১৩৫০ কোটি বছর আগে বিগ-ব্যাং নামক এক মহাজাগতিক বিস্ফোরণের ফলে পদার্থ, শক্তি, স্থান এবং কাল গঠিত হয়। মহাবিশ্বের এই মৌলিক বিষয়গুলো নিয়ে যার কারবারি তার নাম পদার্থবিদ্যা। এসব গঠিত হওয়ার তিন লক্ষ বছর পর পদার্থ ও শক্তি একে অপরের সাথে মিলিত হয়ে একটি জটিল কাঠামো গঠন করে যার নাম পরমাণু আর অসংখ্য পরমাণু একত্রিত হয়ে গঠন করে অণু। এসব অণু, পরমাণু এবং তাদের পারস্পরিক ক্রিয়া-বিক্রিয়ার খুঁটিনাটি নিয়ে... বিস্তারিত

×