প্রথম প্রাণের রসায়ন

  পৃথিবীর বর্তমান বায়ুমণ্ডলের চেয়ে একেবারে আলাদা কোন বায়ুমণ্ডলে যে প্রাণের আবির্ভাব হয়েছিল এ ধারণা জোরালোভাবে প্রথম উপস্থাপন করেন ইংরেজ প্রাণরসায়নবিদ (বায়োকেমিস্ট) জন বি এস হ্যালডেন। ১৯২০ এর দিকে তিনি ইঙ্গিত দেন যে বায়ুমণ্ডলের অক্সিজেনের জন্য দায়ী যদি হয় প্রাণ তাহলে সেই প্রাণের সূচনা হয়েছিল এমন এক সময়ে যখন বায়ুমণ্ডলে কোন অক্সিজেন ছিল না বরং কার্বনডাইঅক্সাইডে বোঝাই ছিল বায়ুমণ্ডল।   [caption id="attachment_821" align="aligncenter" width="523"] জন বি এস হ্যালডেন[/caption]   ১৯৩৬... বিস্তারিত

দালোল: পৃথিবীর নরক

০১ এপ্রিল ২০১৭ সঞ্জয় কুমার বেলোয়ার

ইশকুল , , ,

  দালোল বিষুবরেখার নিকটবর্তী হর্ন অফ আফ্রিকা, উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়ায় অবস্থিত। গড় তাপমাত্রার বিচারে এটি পৃথিবীর সবচেয়ে উষ্ণতম স্থান। উঁচু পর্বত আর ঊষর মরুভূমির এই রুক্ষ দেশটির উত্তর-পূর্বে দ্বিতীয় প্রশাসনিক অঞ্চলের দালোল আগ্নেয়গিরি থেকে জন্ম নেয়া দালোল ডিপ্রেশনটি (দেবে যাওয়া অঞ্চল) পৃথিবীর সবচেয়ে নিচু জায়গাগুলোর একটি। তবে দালোল কিন্তু আরও বড় একটি অবতল বা দেবে যাওয়া অঞ্চলের অংশবিশেষ যা দানাকিল ডিপ্রেশন নামে ভূতাত্ত্বিকদের নিকট পরিচিত। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এই অবতল অঞ্চলটি... বিস্তারিত

  কেমন করে সব শুরু হল, কিভাবে আমরা পৃথিবীতে এলাম, আর সব এত এত প্রাণী কোত্থেকে এলো, জীবন কি, কিভাবে প্রাণের আবির্ভাব হল- এরকম দার্শনিক-বৈজ্ঞানিক প্রশ্নের সামনে প্রতিটি বুদ্ধিমান মানুষকে জীবনে অন্তত একবার হলেও মুখোমুখি হতে হয়েছে। কেউ কেউ সে প্রশ্নের উত্তর পেতে আতিপাতি খুঁজে বেড়িয়েছেন আর অনেকেই এরকম "অকেজো" প্রশ্ন মাথা থেকে বার করে জীবনে বুঁদ হয়ে যাওয়াকেই শ্রেয় মনে করেছেন। তবে যাদের জানার ইচ্ছেটা প্রবল, যারা সবকিছুর গোঁড়া... বিস্তারিত

মেঘ না থাকলে, বৃষ্টি না হলে বাঙালি কবিরা আধা-বোবা হয়ে যেতেন। একটা কথা প্রচলিত আছে, যদি তোমার মন খারাপ হয় তাহলে উপরে তাকিয়ে আকাশকে দেখ, মন ভালো হয়ে যাবে। ভেসে থাকা মেঘ দেখে মন ভালো হয়, মেঘ থেকে বৃষ্টি হয় আর তাতে ভাবুক-কবিদের মন ভিজে যায়। কিন্তু, কথা হোলো মেঘ ভেসে থাকে কেন? সব মেঘ থেকে কি বৃষ্টি হয়?? তারও আগের প্রশ্ন হোলো, মেঘ হয় কি করে?   [caption id="attachment_355"... বিস্তারিত

যাকিন্থস দ্বীপ, গ্রীস

ছেলেবেলায় আমরা অনেকেই এই গল্পটা পড়েছি কিম্বা শুনেছি – একদা এক গ্রামে দুই ভাই থাকতো, তারা চাষবাস করে জীবন যাপন করতো। বড় ভাইটি ছিল কর্মঠ, সরল-সে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ফসল ফলাত আর ছোট ভাইটি ছিল আলসে, লোভী আর পাক্কা ফাঁকিবাজ কাজের ব্যাপারে। কি করে একদিন বড় ভাইটি এক জাদুর বাটির সন্ধান পায়, যার কাছে একটা মন্ত্র পড়ে যা খেতে চায় সে তা ই চলে আসে। এই ধরো, সে মন্ত্র... বিস্তারিত

×