মানুষের বীর্য হতে পারে ২৭ রকমের ভাইরাসের আবাস

২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ফাহিম ফয়সাল | ১৯৬

ট্যাগঃ , , ,

১৯৫২ সালে আফ্রিকার উগান্ডা এবং তানজানিয়ায় জিকা ভাইরাস সনাক্ত করার পর দ্রুতগতিতে তা এশিয়া, এমেরিকায় ছড়িয়ে পড়লো। এডিস মশকীর কামড় হতে এই জিকা ভাইরাস একজন মানুষের দেহ থেকে আরেকজনে প্রবেশ করে থাকে। খুব সিরিয়াস না হলেও অনেকটা ডেঙ্গুর মত উপসর্গ যেমন জ্বর, মাথাব্যথা, গা ম্যাজম্যাজ করা, মাংসপেশি ও হাড়ের জয়েন্টে ব্যথা, চোখ উঠা ইত্যাদি দেখা যেত জিকা ভাইরাস আক্রান্ত মধ্যে।

 

রক্তে জিকা ভাইরাস

রক্তে জিকা ভাইরাস

 

কিন্তু পরে বিজ্ঞানীরা যখন গবেষণায় জানলেন জিকা ভাইরাস মানুষের বীর্যে ৬ মাস পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে তখন জনমনে দারুণ ভীতির সঞ্চার হল। সবচেয়ে বেশি ভয় পেলেন যারা সন্তান কামনা করছিলেন তারা, স্বাভাবিকভাবেই। এখন আমজনতার অনেকেই জানেন যে জিকা ভাইরাস থেকে যৌনবাহিত রোগ হয়, অর্থাৎ এটি একটি STD বা Sexually Transmitted Disease । জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার ৪১ দিন পর্যন্ত তা বীর্যের মাধমে সঙ্গিনীর দেহে এবং রক্তে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

 

বিশেষভাবে রঞ্জিত ইবোলা ভাইরাসের ভিরিয়ন

বিশেষভাবে রঞ্জিত ইবোলা ভাইরাস, আক্রান্ত কোষ থেকে বেরিয়ে রক্তে আসার পর

 

একটি নতুন মেটা-অ্যানালাইসিস থেকে জানা গেছে জিকা ছাড়া আরও ২৬ টি ভাইরাস বীর্যে বেঁচে থাকতে পারে এবং সেখান থেকে পরে রক্তে ছড়িয়ে পড়ে। বীর্যবাসী এই ভাইরাসদের তালিকায় আছে ইবোলা, এইচআইভি, হেপাটাইটিস বি, হার্পিসের নামও।

 

HIV এর 3D ছবি

AIDS এর জন্য দায়ী HIV বা হিউম্যান ইমিয়ুনো ভাইরাসের এর 3D ছবি

 

হেপাটাইটিস বি ভাইরাস

রক্তনালীতে লোহিত রক্ত কণিকার সাথে হেপাটাইটিস বি ভাইরাস

 

৩৮০০ এরও বেশি সায়েন্টিফিক লিটারেচার রিভিও করার পর গবেষকরা জানিয়েছেন এই ২৭ টির মধ্যে অন্তত ১১ টি ভাইরাস রয়েছে যেগুলো অণ্ডকোষের ভেতর  দিব্যি বেঁচে থাকতে পারে। ইনফ্লুয়েঞ্জা, ডেঙ্গু এবং সার্স (সিভিয়ার একিউট রেস্পিরেটরি সিনড্রোম) এর জন্য দায়ী ভাইরাসগুলো এই কাতারে পড়ে। বীর্য বা সিমেনে এসব ভাইরাস চলে আসতে পারে।

 

ডেঙ্গু ভাইরাস

ডেঙ্গুজ্বরের কালপ্রিট ডেঙ্গু ভাইরাস এক ধরণের ফ্ল্যাভিভাইরাস

 

ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস

ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস যে অণ্ডকোষে অবস্থান করতে পারে এ ধারণা বিজ্ঞানীদের ছিল না

 

সার্স ভাইরাস

সার্স ভাইরাস আসলে এক রকমের মডিফায়েড ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস, 

 

যদিও ২৭ টি ভাইরাসের সবগুলো ব্যাক্তি-থেকে-ব্যাক্তিতে সংক্রমিত হয় না তবুও এই নচ্ছার ভাইরাসগুলো জটিল সব সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। বিজ্ঞানীরা বলছেন এসবের কারণে ইনফার্টিলিটি বা বন্ধাত্য দেখা দিতে পারে। সেই সাথে STD হবার সম্ভাবনাও বহুগুণ বেড়ে যায় এসবের উপস্থিতিতে।

 

নানান রকম যৌনবাহিত রোগ

নানান রকম যৌনবাহিত রোগ

 

এমনকি শুক্রাণুর ডিএনএতেও রদবদল মানে মিউটেশন ঘটাতে সক্ষম এই ভাইরাসগুলোর কোন কোনটি। যার ফলে পরিবর্তিত ডিএনএ সহ শুক্রাণু ডিম্বাণুর সাথে মিলিত হয়ে নিষেক ঘটাবে আর ভাইরাসের দ্বারা পরিবর্তিত ডিএনএ পরবর্তী প্রজন্মে প্রবাহিত হবে। CDC (Center for Disease Control) এর জার্নালে এ নিয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে।

 

ডিএনএ এর ডাবল হেলিক্সে মিউটেশন

ডিএনএ এর ডাবল হেলিক্সে মিউটেশন

 

তবে বিজ্ঞানীরা জানান যে এ নিয়ে এখনো খুব বেশি গবেষণা হয় নি। বিশেষ করে কোন কোন ভাইরাস সিমেনে বেঁচে থাকতে পারে, আদৌ কি সেগুলো  STD করে কি না, যদি করে থাকে তাহলে কিভাবে তা হয়ে থাকে ইত্যাদি অনেক প্রশ্নের উত্তর এখনো জানার বাকি আছে।

Share on Facebook

মন্তব্য করুন

×